জন্ম নিবন্ধন হালনাগাদ করণ ডিজিটাল পদ্ধতিতে কিভাবে সংগ্রহ করবেন

আজকে আমাদের ওয়েবসাইটে জন্ম নিবন্ধন হালনাগাদ করণ সম্পর্কে আলোচনা করা হবে। আপনারা যারা জন্ম নিবন্ধনের তথ্য হালনাগাদ করতে চাচ্ছেন অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদের যে কপি হাতে রয়েছে তার হালনাগাদ করতে চাইলে অবশ্যই আমাদের ওয়েবসাইটের এই পোস্ট অনুসরণ করবেন। প্রকৃতপক্ষে আমরা হালনাগাদ বলতে বোঝাচ্ছি যে আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ যদি হাতে লিখে তৈরি করা হয়ে থাকে তাহলে এটি ডিজিটাল পদ্ধতিতে কিভাবে সংগ্রহ করবেন। যদি কারো জন্ম নিবন্ধন সনদ হাতে লেখা হয়ে থাকে তাহলে সেই ব্যক্তি ডিজিটাল পদ্ধতিতে জন্ম নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ করতে পারবে এবং এর জন্য তাকে জন্ম নিবন্ধনের জন্য যে অফিশিয়াল ওয়েবসাইট রয়েছে সেখানে গিয়ে আবেদন করতে হবে।

আর ওয়েবসাইটের ভাষায় জন্ম নিবন্ধন সনদ ডিজিটাল পদ্ধতিতে হালনাগাদ করার যে পন্থা রয়েছে তার নাম হলো জন্ম নিবন্ধন পুনর্মুদ্রণ এর জন্য আবেদন অথবা প্রতিলিপি সংগ্রহের জন্য আবেদন। তাই আপনি যদি কোনভাবে জন্ম নিবন্ধনের তথ্য হালনাগাদ করতে চান এবং পুনর্মুদ্রণ প্রতিলিপি সংগ্রহ করতে চান তাহলে আজকের এই পোষ্ট এখান থেকে শুরু করছি এবং এখানেই আপনাদেরকে সেই দিক নির্দেশনা প্রদান করছি। আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদ যদি অনেক আগে থেকে তৈরি করা হয়ে থাকে এবং সেই জন্ম নিবন্ধন সনদ যদি হাতে লিখে প্রস্তুত করা হয়ে থাকে তাহলে আপনারা ডিজিটাল পদ্ধতিতে তা সংগ্রহ করতে পারবেন এবং এক্ষেত্রে আপনাদের হয়তো নির্ধারিত পরিমাণ কিছু চার্জ খরচ হতে পারে।

জন্ম নিবন্ধন এর প্রতিলিপি সংগ্রহ করার জন্য আপনাদের এমন একটি ওয়েবসাইটের লিংক আমরা প্রদান করবে যেখানে গিয়ে আপনারা অফিশিয়ালি সকল কাজ করতে পারবেন। তাছাড়া গুগলে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন এর মুদ্রণের জন্য আবেদন লিখে সার্চ করলেই আপনাদের সামনে যে ওয়েবসাইটে প্রদর্শিত হবে সেখানে চলে যাবেন। সেখানে গিয়ে জন্ম নিবন্ধন লিখার উপরে ক্লিক করে প্রতিলিপি সংগ্রহের জন্য আবেদন এর উপরে ক্লিক করলেই আপনাদের সেখান থেকে আবেদন করার জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য প্রদান করতে হবে। তবে উপরের উল্লেখিত নিয়ম প্রদান করার পরেও যদি কেউ বুঝতে না পারে তাহলে তারা সরাসরি আমাদের ওয়েবসাইট থেকে আবেদন করার পেজের লিংক এখান থেকে কপি করে নিবে।

সেই জন্ম নিবন্ধন সনদের প্রতিলিপি সংগ্রহ করার জন্য যে আবেদন করা হবে সেই আবেদন পেজের লিংক হলো https://bdris.gov.bd/br/reprint/add । এখানে গিয়ে আপনাকে জন্ম নিবন্ধন সনদের নাম্বার প্রদান করতে হবে এবং এই নাম্বার অবশ্যই 17 ডিজিটের হতে হবে। যদি কারোর জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার 13 ডিজিটের হয়ে থাকে তাহলে তার আগে জন্ম সাল বসাতে হবে।

তারপরে জন্ম নিবন্ধন অনুসারে জন্মতারিখ বসিয়ে দিয়ে তথ্য অনুসন্ধান করতে হবে এবং তথ্য অনুসন্ধান করে যদি তথ্য মিলে যায় তাহলে পরবর্তী অপশনে যেতে হবে। সেখানে গিয়ে আপনি আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদের তথ্য অনুযায়ী ঠিকানা সংক্রান্ত যে সকল তথ্য চাওয়া হবে সেগুলো যথাযথভাবে প্রদান করবেন এবং এ ক্ষেত্রে কোন ধরনের তথ্য ভুল করা।

তারপরে আপনি সেই ঠিকানা সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করে পরবর্তী পেজে যাবেন এবং সেখানে গিয়ে পুনর্মুদ্রণ করার জন্য যে সকল তথ্য চাওয়া হবে সেগুলো প্রদান করবেন এবং আপনি আবেদনকারীর তথ্য প্রদান করবেন। আপনি নিজে যদি আপনার জন্ম নিবন্ধন সনদের তথ্য পুনর্মুদ্রণ করতে চান তাহলে সেখানে নিজ অপশন দিয়ে দেবেন এবং অন্য কারো তোরে দিলে এবং সেই ব্যক্তি যদি আপনার পরিবারের সদস্য হয় তাহলে অন্যান্য অথবা পরিবারের সদস্যের নাম লিখে দিন। যদি আবেদনকারী অন্যকেও ব্যক্তি হয়ে থাকে তাহলে সেখানে আবেদনকারীর জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার এবং জন্ম নিবন্ধন এর নাম্বার প্রদান করা লাগবে।

এভাবে আপনারা পরবর্তী পেজে গেলে এতক্ষণ যে তথ্য প্রদান করলেন সেই তথ্যের ওপর ভিত্তি করে একটি পেজ তৈরি হয়ে গিয়েছে এবং সেখানে সকল তথ্য ইনপুট করা হয়েছে। সকল তথ্য যদি সঠিক হয় তাহলে আপনার আবেদনটি সাবমিট করতে হবে এবং সাবমিট করলে আপনাকে একটি অ্যাপ্লিকেশন আইডি প্রদান করা হবে। অ্যাপ্লিকেশন আইডি সঙ্গে সেই পেজ থেকে আপনারা জন্ম নিবন্ধন সনদ হালনাগাদকরণের জন্য যে তথ্য প্রদান করলেন তার জন্য একটি আবেদন পত্র পিডিএফ ফাইল আকারে রেডি হয়ে গিয়েছে এবং তা আপনার ডাউনলোড করতে পারবেন।

এখন এই পিডিএফ ফাইল আপনারা ডাউনলোড করে নিয়ে স্থানীয় সরকার বিভাগ এ গিয়ে জমা দিলেই তারা আপনাকে কিছু দিনের ভেতরে জন্ম নিবন্ধন সনদের হালনাগাদ করা অর্থাৎ ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধন সনদ প্রদান করবে। তাই উপরের নিয়ম অনুসরণ করে আপনারা জন্ম নিবন্ধন সনদ হালনাগাদ করে নিন অথবা ডিজিটাল করে নিন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button