জন্ম নিবন্ধন দিয়ে কিভাবে আইডি কার্ড সংশোধন করবেন NID Correction by Jonmo Nibondhon

আপনারা জাতীয় পরিচয় পত্রে অথবা ভোটার আইডি কার্ডে কোন ধরনের যদি ভুল ভ্রান্তি থাকে তাহলে বর্তমানের নিয়ম অনুসরণ করে আপনারা এই তথ্য সংশোধন করতে পারবেন। যেহেতু আপনার জাতীয় পরিচয় পত্র জন্ম নিবন্ধনের তথ্য অনুসরণ করে অথবা মাধ্যমিক পরীক্ষার সার্টিফিকেট এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে সেহেতু আপনারা এই জাতীয় পরিচয় পত্রের যদি কোন ধরনের ভুল ভ্রান্তি লক্ষ্য করেন তাহলে জন্ম নিবন্ধন দিয়ে জাতীয় পরিচয় পত্র আজকে সংশোধনন করে নিন।

আমরা এখানে আজকে সংশোধন করা বলতে অনলাইনে আবেদন করার কথা বলেছি এবং আপনারা যখন অরিজিনাল সংশোধিত কপি হাতে পাবেন তখন আপনাদের কিছু সময় প্রমাণ করতে হবে। জাতীয় পরিচয় পত্র একটা মানুষের জীবনের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ একটি ডকুমেন্ট এবং এই ডকুমেন্টসের মাধ্যমে আপনি দেশের অভ্যন্তরের যেমন প্রাতিষ্ঠানিক বিভিন্ন ধরনের কাজ করতে পারবেন তেমনি ভাবে দেশের বাইরে যাওয়ার জন্য অথবা পাসপোর্ট ভিসা তৈরি করার জন্য এটির ভূমিকা সবচেয়ে বেশি।

বাংলাদেশের নিয়ম অনুসারে জাতীয় পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ড প্রদান করা হয়ে থাকে বাংলাদেশের একজন নাগরিকের বিশ্বস্ত পরিচয় পত্র হিসেবে এবং এটি ব্যবহার করে একজন নাগরিক দেশের যেকোন প্রান্তে যেকোন কাজ করতে পারে। তবে যাই হোক আপনার এই আইডি কার্ডের যদি দেখেন যে আপনার জাতীয় পরিচয় পত্রের কোন ভুল-ভ্রান্তি চলে এসেছে অথবা জন্ম নিবন্ধন সনদ এর সঙ্গে মিল নেই অথবা এসএসসি সার্টিফিকেট এর সঙ্গে মিল নেই তখন আপনারা নিচের নিয়ম অনুসরন করে জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধন করে নিবেন। জাতীয় পরিচয়পত্রের ভুল সংশোধন করার জন্য আপনাকে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে যেতে হবে এবং সেখানে গিয়ে একটি প্রোফাইল ওপেন করতে হবে।

যদি আগে থেকে কোন ধরনের প্রোফাইল ওপেন করা না থাকে তাহলে আপনাদেরকে সেখানে আপনার জাতীয় পরিচয়পত্রের নাম্বার প্রদান করতে হবে এবং জন্মতারিখ প্রদান করে অন্যান্য তথ্য দিয়ে প্রোফাইল খুলতে হবে। প্রোফাইল যখন ওপেন করা হয়ে যাবে তখন আপনাদের সেই প্রোফাইলে যেতে হবে এবং প্রোফাইলে গেলেই আপনার এডিট অপশন পেয়ে যাবেন। এডিট অপশনে গেলে আপনারা প্রোফাইলের তথ্য অথবা আপনার ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য পরিবর্তন করার জন্য তিনটি ধাপ পাবেন এবং যে ধাপ এর তথ্য সংশোধন করা প্রয়োজন সে ধাপে চলে যাবেন।

সেখানে গিয়ে আপনার যে ধরনের তথ্য সংশোধন করা প্রয়োজন সেগুলো এডিট অপশনে গিয়ে তথ্য দিয়ে দিন এবং পরবর্তীতে আপনার এই তথ্য সংশোধনের জন্য 230 টাকা মোবাইল ব্যাংকিং অথবা অন্য কোনো মাধ্যমে ওয়েবসাইটে ডিপোজিট করতে হবে। আপনারা যদি বিকাশের মাধ্যমে ভোটার আইডি কার্ডের তথ্য সংশোধন করতে চান তাহলে সেখানে এনআইডি ওয়ালেট অথবা এনআইডি সার্ভিস নামক যে অপশন পাবেন সেখানে আপনার তথ্য সংশোধন করার কারণ সমূহ উল্লেখ করে 230 টাকা ডিপোজিট করে দিন।

এরপরে আপনাকে ওয়েবসাইটে ভিজিট করতে হবে এবং সেখানে ভিজিট করার পর পেজ রিলোড করার পর দেখতে পাবেন সেখানে 230 টাকা ডিপোজিট হয়ে গিয়েছে এবং আপনার এসকল তথ্য প্রমাণ করার পর সেখানে আপনার তথ্যের প্রমাণ হিসেবে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য সংশোধন করার উদ্দেশ্যে জন্ম নিবন্ধন সনদের স্ক্যান কপি আপলোড করুন। সেইসাথে আপনারা মাধ্যমিক পরীক্ষার সার্টিফিকেট সংযুক্ত করতে পারেন এবং এক্ষেত্রে ওয়েবসাইটের নিয়ম নীতি অনুসারে নির্ধারিত রেজুলেশনের ভেতরে এগুলো আপলোড করতে হবে।

এভাবে অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে জন্ম নিবন্ধন সনদ স্ক্যান করে আপলোড করে আইডি কার্ড সংশোধন করবেন এবং সংশোধন করার পর আবেদনপত্রসহ এবং জন্ম নিবন্ধন সনদের অনুলিপি ও মাধ্যমিকের সার্টিফিকেট সহ আপনাদের নিকটস্থ সার্ভার স্টেশন এ যোগাযোগ করে আপনারা কাগজপত্র জমা দিন। এতে আপনাদের প্রদান করা ফোন নাম্বারে একটি এসএমএস আসবে এবং আপনাদের সংশোধিত জাতীয় পরিচয় পত্র সংগ্রহ করার জন্য জানানো হবে।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button