নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন bdris.gov.bd

আপনি যদি নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন প্রক্রিয়া সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের ইনকাম কিভাবে পাবেন অথবা কিভাবে জন্ম নিবন্ধন সনদ হাতে পাবেন তা জানতে আজকের এই পোস্ট শেষ পর্যন্ত পড়বেন। জন্মসূত্রে আপনাকে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে হবে এবং এটা বর্তমান বর্তমান নিয়ম অনুসরণ করে আপনাকে অনলাইনের মাধ্যমে তৈরি করতে হবে। জন্ম নিবন্ধন সনদ যদি কোন ব্যক্তির জন্য করা না হয়ে থাকে তাহলে সেই ব্যক্তি পরবর্তীতে জাতীয় পরিচয় পত্রের তথ্য প্রদান করার সময় যেমন জন্ম সনদের তথ্য প্রদান করতে পারবে না তেমনি ভাবে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হবে।

তাই বাংলাদেশ সরকার জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করার জন্য এবং এই সনদের তথ্য খুব সহজ নিয়ম অনুসরণ করে খুঁজে পাওয়ার জন্য যে নিয়ম চালু করছে সেই নিয়ম অনুসরণ করে আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে নতুন জন্ম নিবন্ধনের জন্য আবেদন করার উদ্দেশ্যে আমাদের ওয়েবসাইট থেকে আজকে প্রত্যেকটি নিয়ম জেনে নিতে পারবেন।

নতুন জন্ম নিবন্ধন সনদের জন্য আপনাকে আবেদন করতে হবে এবং এই আবেদন করার পূর্বে আপনাকে অবশ্যই যার জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করবেন তার স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মী কর্তৃক প্রদত্ত টিকা কার্ড এবং আপনি যে স্থানে বসবাস করছেন সেই স্থানের জমির খাজনা পরিশোধের রশিদ অথবা ট্যাক্স পরিষদের রশিদ আগে থেকে সংগ্রহ করে রাখতে হবে।

কারণ জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করার সময় প্রত্যেকটি লিখিত তথ্য প্রদান করার পাশাপাশি প্রমাণ স্বরূপ এই তথ্যগুলো দিতে হবে। যেহেতু আপনি ছোট বাচ্চার জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করেছেন সেহেতু আপনাদেরকে এই সকল কাগজপত্র দিতে হবে এবং বড় বাচ্চার জন্য এই সকল জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে হলে তার মাধ্যমিকের সার্টিফিকেট লাগবে এবং উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একজন রেজিস্টার্ড ডাক্তার কর্তৃক সনদপত্র লাগবে। তবে যাই হোক সেই সকল তথ্য আপনার আপারে সংগ্রহ করলেও হবে এবং আপনার এখন ওয়েবসাইটে গিয়ে কিভাবে আবেদন করবেন সেটা জেনে নিন।

ওয়েবসাইটের ঠিকানা হলো https://bdris.gov.bd/ এবং এই ঠিকানা ব্যবহার করে আপনারা জন্ম নিবন্ধন এর অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন এবং প্রবেশ করে সেখানে আবেদন করার জন্য প্রত্যেকটি ধাপ যথাযথভাবে অনুসরণ করবেন। আপনি যার জন্য জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করতে চাচ্ছেন তার কোন ঠিকানায় ভিত্তিতে তৈরি করতে চান তা নির্বাচন করুন। পরবর্তী ঘরে গিয়ে তার ব্যক্তিগত তথ্য অর্থাৎ তার নাম বাংলা এবং ইংরেজিতে প্রদান করতে হবে।

সে পিতামাতার কততম সন্তান এবং তার জাতীয়তা লিঙ্গ এসকল তথ্য প্রদান করতে হবে। প্রথম পেজ এর কাজ শেষ হলে পরবর্তী পেজে চলে যাবেন এবং আগে থেকেই বলে নেওয়া ভাল যে লাল স্টার চিহ্নিত ঘর গুলো অবশ্যই আপনাদের তথ্য পূরণ করতে হবে। এভাবে প্রথম পেজ এর কাজ শেষ করে পরবর্তী পেজে গেলে অভিভাবক সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করতে হবে এবং এক্ষেত্রে বলে নেওয়া ভাল যে অভিভাবকের অবশ্যই ডিজিটাল অথবা অনলাইন জন্ম নিবন্ধন সনদ থাকতে হবে।

এই জন্ম নিবন্ধন সনদের নাম্বার সেখানে বসিয়ে দিলে অভিভাবকের নাম অটোমেটিক চলে আসবে। তাছাড়া অভিভাবকের জাতীয় পরিচয় পত্রের নাম্বার প্রদান করবেন এবং পরবর্তী পেজে গিয়ে আপনারা ঠিকানা সংক্রান্ত তথ্য প্রদান করবেন। এক্ষেত্রে বর্তমান ঠিকানা এবং স্থায়ী ঠিকানা যদি একই হয়ে থাকে তাহলে একটি ঘরের তথ্য প্রদান করে পরবর্তী ঘরে গিয়ে স্থায়ী ঠিকানার ক্ষেত্রে টিক চিহ্ন প্রদান করুন।

পরবর্তী ঘরে গিয়ে আপনাদেরকে প্রয়োজনীয় প্রমাণস্বরূপ স্ক্যান করে আপলোড করতে হবে এবং আবেদনকারীর তথ্য প্রদান করে আপনাদের এই আবেদন সম্পন্ন করতে হবে। তারপরে আবেদনপত্র প্রিন্ট দিয়ে নিয়ে যেতে হবে স্থানীয় সরকার বিভাগ এবং তাদের কাছে এই কাগজটা স্থান্তর করলে এবং প্রয়োজনীয় ফি প্রদান করলেই তার আপনাকে জন্ম নিবন্ধন সনদ তৈরি করে দিবে।

Related Articles

One Comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button