স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাব সে সম্পর্কে আলোচনা

আপনারা যারা অনেকদিন হয়েছে জাতীয় পরিচয় পত্রের জন্য তথ্য নিবন্ধন করেছেন এবং তার পরেও জাতীয় পরিচয় পত্র হাতে পাননি তাদের জন্য আজকে আমাদের ওয়েবসাইটে স্মার্ট কার্ড কিভাবে পাবেন সে সম্পর্কে তথ্য আলোচনা করব। কারণ 18 বছর পূর্ণ হয়ে গেলে আপনি বাংলাদেশের একজন নাগরিক হয়ে ওঠেন এবং জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরি করার মাধ্যমে আপনার নাগরিকত্ব আরো সুন্দর ভাবে প্রকাশ পেয়ে যায়। অতীতে জাতীয় পরিচয় পত্র তৈরি করতে হলে অনেক সময় ই পেপার লেমিনেটিং ভাষণে তা প্রদান করত।

কিন্তু বর্তমান সময়ে 2016 সালের সর্বশেষ ঘোষণা অনুসারে প্রত্যেককেই স্মার্ট আইডি কার্ড প্রদান করা হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়ে থাকলেও অনেকের কাছেই এই স্মার্ট আইডি কার্ড নেই। সেক্ষেত্রে আপনি যদি পেপার লিমিটিং আইডি কার্ড না পেয়ে থাকেন অথবা কোন ধরনের ভোটার আইডি কার্ড যদি এই পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের অফিস থেকে অথবা অন্য কোনো মাধ্যম দিয়ে না পেয়ে থাকেন তাহলে জেনে নিতে পারবেন কিভাবে কোন পদ্ধতি অবলম্বন করলে স্মার্ট কার্ড আপনারা পেয়ে যাবেন।

2015 সালে যে সকল ব্যক্তিরা ভোটার তথ্য জন্য তথ্য লিপিবদ্ধ করে এবং পরবর্তীতে ভোটার আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে যাই তখন তারা টেম্পোরারি ভোটার আইডি কার্ড হাতে পায়ে। যে কার্ডের মেয়াদ ছিল 2020 সাল পর্যন্ত। ইতোমধ্যে 2022 সাল চলল অনেকেই এই ভোটার আইডি কার্ডের স্থায়ী অরিজিনাল কপি হাতে পায়নি। এরকমভাবে অনেক এলাকায় এবং অনেক সালের আবেদনকারী ব্যক্তিরা স্মার্ট কার্ড হাতে পাইনি অথবা এ পর্যন্ত কোন ধরনের ভোটার আইডি কার্ড হাতে তারা পায়নি।

তবে ভোটার আইডি কার্ড একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এবং এর মাধ্যমে আপনি যেমন আপনার পরিচিতি অন্যের সামনে প্রকাশ করতে পারেন তেমনি ভাবে প্রাতিষ্ঠানিক কাজে নিজেদের পরিচিতি ফুটিয়ে তোলার জন্য ভোটার আইডি কার্ডের অনুলিপি অথবা কিছু কিছু ক্ষেত্রে অরিজিনাল কপি প্রদর্শন করা লাগে। আপনারা যখন স্মার্ট আইডি কার্ড সংগ্রহ করতে চাচ্ছেন এবং এটি যেহেতু আপনার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ সেহেতু আপনারা একটা কাজ করতে পারেন এবং এক্ষেত্রে ওয়েবসাইট চেক করে জেনে নিতে পারেন আপনার স্মার্ট কার্ডের বর্তমান কোন অবস্থায় রয়েছেন।

স্মার্ট কার্ডের তথ্য চেক করার জন্য আপনারা যে ওয়েবসাইটে প্রবেশ করবেন সেই ওয়েবসাইটের লিংক বা ঠিকানা হলো http://www.nidw.gov.bd/ । এখানে প্রবেশ করলে আপনাদের কাছে ডেস্কটপ ভার্সনে একটি অফিশিয়াল ওয়েবসাইট চলে আসবে এবং এক্ষেত্রে আপনাদেরকে জুম ইন করতে হবে এবং ওপরের বামদিকের কোন দিকে যেতে হবে। সেখানে গেলে আপনারা স্মার্ট কার্ড স্ট্যাটাস নামক অপশন পাবেন। সেই ঘরে গিয়ে আপনারা আপনাদের ভোটার আইডি কার্ডের নাম্বার যদি সংগ্রহ করতে পারেন তাহলে সেই নাম্বার দিয়ে দিন অথবা আপনার ভোটার তথ্য নিবন্ধন ফরমের নাম্বার প্রদান করুন।

তারপরে আপনার জন্ম তারিখ সংক্রান্ত যে সকল তথ্য চাওয়া হবে সেগুলো দিয়ে ক্যাপচা কোড পূরণ করুন এবং সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। এতে পরবর্তী পেজে গেলে আপনারা বুঝতে পারবেন সেখানে আপনার স্মার্ট আইডি কার্ড কেমন অবস্থায় রয়েছে এবং কত দিন নাগাদ আপনি এটা পেতে পারেন। তবে সেখানে যদি কোনো তথ্য খুঁজে না পান তাহলে আপনাদেরকে স্মার্ট আইডি কার্ড জরুরী ভিত্তিতে সংগ্রহ করার জন্য আপনি যে এলাকায় বসবাস করেন সে এলাকার উপজেলা সার্ভার স্টেশনে চলে যাবেন।

এই বিষয়টি অবহিত করলে তার আপনাকে সঠিক পদ্ধতি শিখিয়ে দিবে এবং এই ক্ষেত্রে আপনাকে তথ্য আপডেট করতে হবে যার মাধ্যমে তথ্য সংশোধন করার। পরবর্তীতে তথ্য সংশোধনের জন্য এই আবেদন করে আপনারা কিছু তথ্য হালনাগাদ করবেন এবং আপনাদের আবেদনপত্র নির্দিষ্ট পরিমাণ ফি প্রদান করে সার্ভার স্টেশন এর অফিসে জমা দিলে কিছু দিনের ভিতরে আপনার স্মার্ট আইডি কার্ড এর অরিজিনাল কপি চলে আসবে এবং সেখান থেকে আপনারা পেয়ে যাবেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button